বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র অনলাইন বইপড়া কর্মসূচি
  • শামসুদ্দিন মোহাম্মদ হাফেজ শিরজি

  • বই সংখ্যা: 0

হাফেজ শিরাজি, মহাকবি হাফেজ, আসল নাম শামসুদ্দিন মোহাম্মদ হলেন একজন ইরানী বা ফার্সি কবি যিনি বুলবুল-ই-শিরাজ উপাধিতে ভূষিত হন। শিরাজ ইরানেরমদিনা,পারস্যের তীর্থভূমি। শিরাজেরই মোসল্লা নামক স্থানে বিশ্ববিশ্রুত কবি হাফেজ চতুর্দশ শতাব্দীর প্রথম ভাগে জন্মগ্রহণ করেন।[১] ইরানের এক নিশাপুর (ওমর খৈয়াম-এর জন্মভূমি) ছাড়া আর কোন নগরই শিরাজের মত বিশ্বজোড়া খ্যাতি লাভ করেনি। ইরানের প্রায় সমস্ত শ্রেষ্ঠ কবির লীলা-নিকেতন এই শিরাজ। ইরানিরা হাফেজকে আদর করে "বুলবুল-ই-শিরাজ" বা শিরাজের বুলবুলি বলে সম্ভাষণ করে। তারা তাকে "লিসান-উল-গায়েব" (অজ্ঞাতের বাণী), "তর্জমান-উল-আসরার" (রহস্যের মর্মসন্ধানী) বলেও সম্বোধন করেন। হাফেজের কবর আজ ইরানের শুধু জ্ঞানী-গুণীজনের শ্রদ্ধার স্থান নয়, সর্বসাধারণের কাছে "দর্গা", পীরের আস্তানা। তাঁর নামের উচ্চারণ হাফেজ বা হাফিজ।

হাফেজের মৃত্যুর একশত বছরের মধ্যে তাঁর কোন জীবনী রচিত হয়নি। কাজেই তাঁর জীবনের অধিকাংশ ঘটনা আঁধারের নীল মঞ্জুষায় চির-আবদ্ধ রয়ে গেছে। তাঁর জন্ম-মৃত্যুর দিন নিয়ে ইরানেও তাই নানা মুনির নানা মত। হাফেজের বন্ধু ও তাঁর কবিতাসমূহের (দীওয়ানের) মালাকর গুল-আন্দামের মতে হফেজের মৃত্যু-সাল ৭৯১ হিজরি বা ১৩৮৯ খ্রীষ্টাব্দ। কিন্তু তিনিও কবির সঠিক জন্ম-সাল দিতে পারেননি।

হফেজের পিতা বাহাউদ্দীন ইসপাহান নগরী হতে ব্যবসা উপলক্ষে শিরাজে এসে বসবাস করেন। তিনি ব্যবসায়ে বেশ সমৃদ্ধিও লাভ করেন, কিন্তু মৃত্যুকালে সমস্ত ব্যবসায় এমন গোলমালে জড়িয়ে রেখে যান যে শিশু হফেজ ও তাঁর জননী ঐশ্বর্যের কোল থেকে একেবারে দারিদ্র্যের করাল গ্রাসে নিপতিত হন। বাধ্য হয়ে তখন হফেজকে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে অর্থোপার্জন করতে হয়। কোন কোন জীবনী-লেখক বলেন, দারিদ্র্যের নিষ্পেষণে হফেজকে তাঁর জননী অন্য একজন সঙ্গতিসম্পন্ন বণিকের হাতে সমর্পণ করেন। সেখানে থেকেই হফেজ পড়াশোনা করার অবকাশ পান। যেভাবেই হোক, হফেজ যে কবি-খ্যাতি লাভ করার আগে বিশেষরূপে জ্ঞান অর্জন করেছিলেন, তা তাঁর কবিতা পড়েই বোঝা যায়।

হফেজের আসল নাম শামসুদ্দিন মোহাম্মদ। "হফেজ" তাঁর "তখল্লুস", অর্থাৎ কবিতার ভণিতায় ব্যবহৃত উপ-নাম। যারা সম্পূর্ণ কোরান কণ্ঠস্থ করতে পারেন, তাঁদেরকে আরবি ভাষায় "হাফিজ" এবং ফার্সি ভাষায় "হফেজ" বলা হয়। তাঁর জীবনী-লেখকগণও বলেন, হফেজ তাঁর পাঠ্যাবস্থায় কোরান মুখস্থ করেছিলেন।

তাঁর পাঠ্যাবস্থায়ই তিনি স্বভাবী দক্ষতায় কবিতা রচনা করতে আরম্ভ করেন, কিন্তু তা তেমন আদর লাভ করতে পারেনি। কিছুদিন পরে "বাবা-কুহী" নামক শিরাজের উত্তরে পর্বতের উপরকার এক দর্গায় (মন্দিরে) ইমাম আলি নামক এক দরবেশের সাথে তাঁর সাক্ষাৎ হয়। সেদিন "বাবা-কুহী"তে রাতভর ধর্মোৎসব চলছিল। হফেজও ঐ উৎসবে যোগ দিতে গিয়েছিলেন। ইমাম আলি হফেজকে রহস্যময় কোন ঐশী খাবার খেতে দেন এবং বলেন, এর পরই হফেজ কাব্যলক্ষীর রহস্যপুরীর সব ঐশ্বর্যের অধিকারী হবে। এই বিবরণে কতটা কল্পনারস মিশে আছে তা নিশ্চিতভাবে বলা না গেলেও এটা সত্য যে হফেজের সমস্ত জীবনী-লেখকই এই ঘটনার উল্লেখ করেছেন। শুধু উল্লেখ নয়, বিশ্বাসও করেছেন।

হফেজ তাঁর জীবদ্দশায় তাঁর কবিতাসমূহ (দীওয়ান) সংগ্রহ করে যাননি। তাঁর বন্ধু গুল-আন্দামই সর্বপ্রথম তাঁর মৃত্যুর পর "দীওয়ান" আকারে হফেজের সমস্ত কবিতা সংগ্রহ ও সংগ্রথিত করেন। কাজেই - মনে হয়, হফেজের পঞ্চশতাধিক যে কবিতা আমরা পেয়েছি, তাছাড়াও অনেক কবিতা হারিয়ে গেছে, বা তিনি সংগ্রহ করতে পারেননি।



সর্বমোট অ্যাপ ডাউনলোড
২২৩৫৯
মোট নিবন্ধনকৃত ব্যবহারকারী
১৫৫৮২
সর্বমোট ডাউনলোড
১৫০৮৩৬৬
সর্বমোট ভিজিটর
১৩৮১৪৭০