বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র অনলাইন বইপড়া কর্মসূচি
বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র অনলাইন বইপড়া কর্মসূচি

বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরি

বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের নিয়মিত লাইব্রেরির পাশাপাশি সারাদেশে গড়ে তোলা হয়েছে ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরি। ঢাকাসহ দেশের ৫৬টি জেলার মোট ২৫০টি উপজেলার ১৮০০টি লোকালয়ে ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরির কার্যক্রম বিস্তৃত রয়েছে। ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেররি দৃষ্টিনন্দন গাড়ীগুলো সাতটি আলাদা আকারের-ছোট, ছোট-মাঝারি, মাঝারি, বড়-মাঝারি ও বড়। এগুলো থাকে যথাক্রমে ৪০০০, ৬০০০,৮০০০, ১১০০০ ও ১৭০০০ বই। রাস্তার প্রশস্ততার ওপর নির্ভর করে কোন গাড়ী কোন রাস্তায় চলফেরা করবে তা ঠিক করা হয়। প্রতিটি লাইব্রেরি প্রতি সপ্তাহে শহর ও গ্রাম-এলাকার গড়ে ৪০টি এলকায় গিয়ে আধঘন্টা থেকে দুই ঘন্টা পর্যন্ত দাড়িয়ে ধেকে সদস্যদের মধ্যে বই দেওয়া নেয়া করে। সপ্তাহের কোন দিন কটার সময় গাড়ি কোন এলাকায় কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে তা আগে থেকেই ঠিক করা থাকে। এই লাইব্রেরিগুলোতে বর্তমান সদস্য সংখ্যা এক লক্ষ পঁচিশ হাজার।

আলোর পাঠশালার সদস্যরা এই সাইট থেকে বিনামুল্যে বই ডাওনলোড করে পড়ার পাশাপাশি যদি কাগজে ছাপা মূলবইটি পড়তে চান তবে ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরির সদস্য হয়ে বই সংগ্রহ করে পড়তে পারেন। আগ্রহীদের সুবিধার কথা বিবেচনা করে ভ্রাম্যমান লাইব্রেরির সদস্য হবার নিয়মাবলী ও গাড়ী দাঁড়াবার দিন-সময় আমরা জানিয়ে রাখছি। এলাকা ভিত্তিক স্পটলিস্ট ও সমযের পিডিএফ ফাইল ডাউনলোড করে নিতে পারেন।

বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের স্বপ্ন, চেষ্টা ও আয়োজনের পথ ধরে আগামীতে যদি দেশের সবখানে গুচ্ছ প্রদীপের মতো উজ্জ্বল, বুদ্ধিদীপ্ত আলোকিত মানুষ জন্ম নেয়, তবে তারাই একদিন নিজ নিজ কর্মজীবনের বিচিত্র উদ্যোগের মাধ্যমে দেশ ও জাতিকে সমৃদ্ধতর করবে।

সদস্য হওয়ার নিয়মাবলী—

  • এক ॥ লাইব্রেরির সদস্যপদ লাভ

    • ক. বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরির সদস্য হওয়া একটি সম্পূর্ণ স্বতন্ত্র বিষয়। এটি কেন্দ্রের সভ্য হওয়া বা কেন্দ্রের মূল লাইব্রেরির সভ্য হওয়া কিংবা এর অন্য কোন বিভাগের সভ্য হওয়ার সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত নয়।
    • খ. সদস্য কার্ড সদস্যকে নিজের কাছে রাখতে হবে। ঐ কার্ডের সাহায্যে তিনি ভ্রাম্যমান লাইব্রেরির বই দেয়া-নেয়া করবেন। প্রয়োজনবোধে সদস্য নিজে না এসে অন্য কারো মাধ্যমে কার্ড পাঠিয়ে বই দেয়া-নেয়া কাতে পারবেন। তবে বই এর দায়িত্ব সদস্যকেই বহন করতে হবে।
    • গ. কাউকে সদস্যপদ দেয়া, না দেয়া বা পরিস্থিতিগত কারণে কারও সদস্যপদ বাতিল করার পূর্ণ ক্ষমতা লাইব্রেরি কর্র্তৃপক্ষের রয়েছে।
    • ঘ. এই লাইব্রেরির দুই ধরণের সদস্য থাকবে:
      • ১) সাধানণ সদস্য- যারা একসঙ্গে অনধিক একশত পঞ্চাশ টাকা মূল্যের একটি বই বাড়িতে নিয়ে পড়তে পারবেন।
      • ২) বিশেষ সদস্য যারা একসঙ্গে অনধিক দুইশত পঞ্চাশ টাকা মূল্যের একটি বই বাড়িতে নিয়ে পড়তে পারবেন।
    • ঙ. সদস্যকে অবশ্যই তার সদস্য নম্বরটি মনে রাখতে হবে এবং বই দেয়া- নেয়ার সময় প্রয়োজনবোধে তা লাইব্রেরিয়ানকে জানাতে হবে।
  • দুই ॥ নিরাপত্তা অর্থ (Caution Money) মাসিক চাঁদা ও কার্ড সংরক্ষণ

    • ক. প্রত্যেক সদস্যকে বাড়িতে বই নিয়ে পড়ার জন্য নিরাপত্তা অর্থ জমা দিতে হবে। নিরাপত্তা অর্থ জমা নেয়ার সময় হিসাব বিভাগের প্রয়োজনে সদস্যের স্বাক্ষর রাখা হবে।
    • খ. নিবাপত্তা অর্থের পরিমাণ: সাধারণ সদস্য ১০০ (একশত) টাকা এবং বিশেষ সদস্য ২০০ (দুইশত) টাকা।
    • গ. নিরাপত্তা অর্থ ফেরৎ যোগ্য, তবে সদস্য হওয়ার এক বছরের মধ্যে নয়। নিরাপত্তা অর্থ ফেরৎ নেবার আবেদন করার দুই সপ্তাহে পরে টাকা ফেরত দেয়া হবে। এসময় কেন্দ্রে সংরক্ষিত সদস্যের স্বাক্ষরের সঙ্গে আবেদনপত্রের স্বাক্ষর মিলিয়ে দেখা হব। নিরাপত্তা অর্থ ফেরতের আবেদন করার সময় সদস্যকে অবশ্যই এ ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে।
    • ঘ. মাসিক লাইব্রেরি চাঁদা ১০ (দশ) টাকা কিন্তু ষান্মাসিক বা বার্ষিক ভিত্তিতে চাদা দেয়া আবশ্যক। এক্ষেত্রে কোন সদস্য অপারগ হলে ত্রৈমাসিক ভিত্তিতে চাঁদা দেয়া যেতে পারে। তবে সদস্য হবার সময় বর্তমান মাসের চাঁদাসহ মোট তিন মাসের চাঁদা অগ্রিম পরিশোধ করতে হবে। ২০ তারিখের পর সদস্যপদ গ্রহন করলে চলতি মাসের চাঁদা দিতে হবেনা।
    • ঙ. একসঙ্গে ৩ মাসের চাঁদা বাকি পড়লে বই সরবরাহ বন্ধ থাকবে।
    • চ. যাবতীয় আর্থিক লেনদেন রশিদ ছাড়া গ্রাহ্য হবে না এবং মাসিক চাঁদা ও অন্যান্য আর্থিক পরিমাণ (হার) পরিবর্তনের ক্ষমতা কর্তৃপক্ষ সংরক্ষণ করে।
  • তিন ॥ বই নেয়া

    • সংশ্লিষ্ট ইউনিটের সময় বন্টণ তালিকা (স্পট সিডিউল) অনুযায়ী বই দেয়া-নেয়া করা হবে। প্রয়োজনে কর্তৃপক্ষ বই দেয়া- নেয়ার স্পষ্ট/সময়/সিডিউল পরিবর্তন করতে পারবে এবং প্রতিকূল পরিবেশে সাময়িকভাবে কাজ বন্ধ রাখতে পারবে।
  • চার ॥ বই ফেরত দেয়া

    • ক. বই নেয়ার দুসপ্তাহের মধ্যে অবশ্যই তা ফেরৎ দিতে হবে। বিশেষ কারণে তা সম্ভব না হলে, ব্যক্তিগতভাবে বই নিয়ে এসে অথবা কেন্দ্র সরবরাহকৃত আবেদনপত্রের মাধ্যমে অনুরোধ করে অথবা পত্রযোগে সদস্যের নাম ও কার্ড নম্বর উল্লেখ করে আবেদনের মধ্যমে সময় আরও দুই সপ্তাহ পর্যন্ত বাড়ানো যেতে পারে। কেন্দ্র সরবরাহকৃত আবেদনপত্রের মূল্যে ১ টাকা।
    • খ. সদস্যের পক্ষ থেকে কোন অনুরোধ না এলে তৃতীয় সপ্তাহ থেকে এবং অনুরোধ এলে পঞ্চম সপ্তাহ থেকে বই ফেরত না দেয়ার জন্য জরিমানা শুরু হবে। প্রতি সপ্তাহের বিলম্বের জন্য প্রতিটি বইয়ের জরিমানা হবে ২ টাকা করে।
    • গ. কোনো সদস্যের জরিমানার পরিমাণ নিরাপত্তা অর্থের সমপরিমাণ হলে তা নিরাপত্তা অর্থ থেকে কাটা যাবে। এই অর্থ কাটার ফলে নিরাপত্তা অর্থ শেষ হয়ে গেলে স্বাভাবিকভাবে সদস্যপদ বাতিল হয়ে যাবে।
    • ঘ. বই হারিয়ে ফেললে বইয়ের গায়ে লিখিত দামের তিনগুণ অর্থ পরিশোধ করতে হবে। অন্যথায় নিরাপত্তা অর্থ থেকে তা কেটে নেয়া হবে।
    • ঙ. বই কোনভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হলে সদস্যকে লাইব্রেরি কর্তৃপক্ষের নির্ধারিত জরিমানা দিতে হবে।
    • চ. বই ফেরত দিতে দেরি হলে বা অন্য কোন কারণে জরিমানা হলে ঐ জরিমানার অর্থ পরিশোধ না করা পর্যন্ত বই সরবরাহ বন্ধ রাখা হবে।
    • ছ. ইতিপূর্বে নেয়া বই ফেরত না দিলে কোনোক্রমেই সদস্যকে নতুন বই দেয়া হবে না।
  • পাঁচ ॥ সদস্যপদ স্থগিত, বাতিল এবং নবায়ন সংক্রান্ত লাইব্রেরি কর্তৃপক্ষের ক্ষমতা

    • ক. যে-কোন সদস্যের সদস্যপদ কোনো কারণ না দর্শিয়ে নবায়ন, স্থগিত বা বাতিল করার ক্ষমতা লাইব্রেরি কর্তৃপক্ষের থাকবে।
    • খ. অসাবধানতাবশত কেউ কার্ড হারিয়ে ফেললে, তাকে ৫ (পাঁচ) টাকা জরিমানা ফি দিয়ে নতুন কার্ড সংগ্রহ করতে হবে। নতুন কার্ড করার সময় নিরাপত্তা অর্থ জমা দেয়ার রশিদ এবং সর্বশেষ যে মাসের চাঁদা পরিশোধ করা আছে তার রশিদ নিয়ে আসতে হবে। অন্যথায় কমপক্ষে ১৫ দিন সময় নিয়ে, লাইব্রেরি কর্তৃপক্ষ রেজিস্টার দেখে সদস্যের চাঁদা ও নিরাপত্তা অর্থের পরিমাণ নিরূপণ করে নতুন কার্ড সরবরাহ করবেন।
    • গ. সদস্যদের কেউ সাময়িক অসুবিধার কারণে বই দেয়া-নেয়া করতে অপারগ হলে সদস্যদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সদস্যপদ স্থগিত রাখা হবে। সদস্যপদ স্থগিত থাকাকালে কোনো মাসিক চাঁদা দিতে হবে না। এরপর যে কোনো সময় পরবর্তী ছয় মাসের মাসিক চাঁদা অগ্রিম দিয়ে সদস্যপদ পুণরুজ্জীবিত করা যাবে।
    • ঘ. আগে থেকে সদস্যপদ স্থগিত না করে কেউ ব্যক্তিগত অসুবিধার কারণে সমায়িকভাবে বই লেনদেন করা থেকে বিরত থাকে এবং এ অবস্থায় যদি তার কাছে লাইব্রেরির কোনো বই
  • ছয় ॥ অন্যান্য

    • ক. ঠিকানা পরিবর্তন করলে অবশ্যই পরিবর্তিত ঠিকানা এবং ফোন (যদি থাকে) লাইব্রেরি কর্তৃপক্ষের গোচরে আনতে হবে।
    • খ. বইয়ের মধ্যে যে কোন কিছু লেখা/দাগ দেয়া, ইচ্ছাকৃত বইয়ের পৃষ্ঠা/মলাট ছেড়া সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ। কোন সদস্যের বিরুদ্ধে এ ধরণের অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে লাইব্রেরি কর্তৃপক্ষ উপয্ক্তু ব্যবস্থা নিবে।